1. gazisalahuddin93@gmail.com : Gazi Salahuddin : Gazi Salahuddin
  2. ksbrujmon@gmail.com : manacusa :
মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০২:২৫ অপরাহ্ন
সদ্য সংবাদ
জানাজা শেষে ফেরার পথে সড়ক দূর্ঘটনায় দুই বন্ধুর মৃত্যু ফায়ার সার্ভিস ইউনিট অগ্নি নির্বাপনের ক্ষেত্রে আর সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে শাহরাস্তি অপরূপা নাট্যগোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হৃদয়ের পক্ষ থেকে ডিসি,এডিসিকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা হাজীগঞ্জে নিরাপদ খাদ্য আইন জনসচেতনতায় ‘ক্যারাভান রোড শো’র উদ্বোধন হাজীগঞ্জ মজুমদার পোল্ট্রি ফার্মে তিন সহস্রাধিক মোরগের মৃত্যু হাজিগঞ্জ নোয়াপাড়া শাহী বাগদাদী (রহ:) জামে মসজিদে তৃতীয় বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহবুবুল আলম চুন্নু’র মায়ের দাফন সম্পন্ন হাজীগঞ্জে ১৩০পিস ইয়াবাসহ তিনজন আটক মুজিববর্ষ উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান হাজীগঞ্জের কালচো ইউনিয়নে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্থ স্থান পরিদর্শন করলেন ইউএনও

বাঙ্গালী বধূ ও আফ্রিকান ফুটবলারের সুখের সংসারের গল্প

আসমা সাদি
  • Update Time : বুধবার, ১৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ৫৯ Time View

‘হ্যাপি ম্যারি ক্রিসমাস’ লেখা বড় স্টিকার ঝুলছে দরজার বাইরে। কলিং বেলের শব্দে দরজা খোলার পর ‘আসসালামু আলাইকুম’ও শোনা গেল। সম্বোধনের জবাব দিয়ে ভেতরে বসতে বসতে মাথায় এল,

ক্ষণিকের ব্যবধানে ‘হ্যাপি ম্যারি ক্রিসমাস’ ও ‘আসসালামু আলাইকুম’ অনভ্যস্ত কানে কিছুটা অদ্ভুত লাগবেই। কিন্তু সে অস্বস্তিটা মিলিয়ে যায় মুহূর্তেই, দারুণ এক গল্প শোনার অপেক্ষায়।


২০১২ সালের প্রথম দিককার কথা। ক্লাবের অনুশীলন শেষে রেস্টুরেন্টে গিয়ে বসতেন এক ফুটবলার। সেখানে দেখা মিলত এক নারীর, ছেলেকে স্কুলের টিফিন কিনে দিতে ঢুকতেন তিনি।

নিয়মিত চোখাচোখি হতো, কথাবার্তাও শুরু হলো। এ প্লেট থেকে খাবার ও প্লেটে, মন আদান-প্রদান হতেও সময় লাগল না। দুই জোড়া হাতের এক হয়ে যাওয়া—সেটাও হয়ে গেল নিমেষে।

সিনেমার গল্প মনে হচ্ছে, তাই না! এখনো ঢের বাকি গল্পের। কারণ, গল্পটা এক আফ্রিকান ফুটবলারের সঙ্গে বাঙালি মেয়ের বিয়ের। ঢাকার ফুটবলের পরিচিত নাম এলিটা কিংসলে। আর এ গল্পের অন্য চরিত্রের নাম লিজা। নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকারের সঙ্গে পরিচয় হওয়ার বছর খানেক আগে বিবাহবিচ্ছেদ হয়েছিল তাঁর।

২০১২ সালের প্রথম দিককার কথা। ক্লাবের অনুশীলন শেষে রেস্টুরেন্টে গিয়ে বসতেন এক ফুটবলার। সেখানে দেখা মিলত এক নারীর, ছেলেকে স্কুলের টিফিন কিনে দিতে ঢুকতেন তিনি। নিয়মিত চোখাচোখি হতো, কথাবার্তাও শুরু হলো। এ প্লেট থেকে খাবার ও প্লেটে, মন আদান-প্রদান হতেও সময় লাগল না। দুই জোড়া হাতের এক হয়ে যাওয়া—সেটাও হয়ে গেল নিমেষে।

সিনেমার গল্প মনে হচ্ছে, তাই না! এখনো ঢের বাকি গল্পের। কারণ, গল্পটা এক আফ্রিকান ফুটবলারের সঙ্গে বাঙালি মেয়ের বিয়ের। ঢাকার ফুটবলের পরিচিত নাম এলিটা কিংসলে। আর এ গল্পের অন্য চরিত্রের নাম লিজা। নাইজেরিয়ান স্ট্রাইকারের সঙ্গে পরিচয় হওয়ার বছর খানেক আগে বিবাহবিচ্ছেদ হয়েছিল তাঁর।

সাধারণত আগের ঘরের সন্তানের বাবা বা মায়ের দ্বিতীয় বিয়ের ক্ষেত্রে বাধা হয়ে ওঠে। কিন্তু লিজার ছেলে ফারিয়ানই দুই দেশের দুটি প্রাণের মধ্যে সেতুবন্ধ করে দিয়েছে। চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ুয়া ফারিয়ানের সঙ্গেই প্রথমে পরিচয় হয়েছে এলিটার। বাবা থাকতেও নেই—এ কথা শুনে ফারিয়ানের প্রতি এলিটার সহানুভূতি জাগে। পরে ফারিয়ানের সূত্র ধরে লিজার সঙ্গে পরিচয়, রেস্টুরেন্টে নিয়মিত একসঙ্গে খাওয়া ও ফোন নম্বর বিনিময়।

লিজা প্রথমে ইংরেজি বলতে পারতেন না। এখানেও ভরসা ছেলে ফারিয়ান। মা ও কিংসলের মধ্যে অনুবাদক হিসেবে কাজ করত ফারিয়ান। কয়েক মাসের পরিচয়ে এলিটার পক্ষ থেকেই প্রথমে বিয়ের প্রস্তাব দেওয়া হয়। বিয়ের পিঁড়িতে বসেন ২০১২ সালের ২০ মে। প্রায় দেড় বছর পর ২০১৩ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর তাঁদের কোলজুড়ে এসেছে মেয়ে সামিরা। বিয়ে ও মেয়ে সামিরার জন্ম তারিখটা লিজার ঠোঁটের আগাতেই ছিল। তাঁদের সংসারটাও অনেক সুখের, ‘মনে হয় না আমি কোনো ভিনদেশির সঙ্গে সংসার করছি। আমাদের সম্পর্কটা খুবই মিষ্টি। দেখছেনই তো এক বাসাতেই আমার বাবা-মাও থাকেন। প্রথমে ভাষার সমস্যা ছিল। কিন্তু ছেলে আমাদের সবকিছু বুঝিয়ে দিত। এখন আমি নিজেই ইংরেজিতে অভ্যস্ত হয়ে উঠছি। এলিটাও এখন বাংলা অনেকটা আয়ত্তে নিয়ে ফেলেছে।’

এলিটার নামটি শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে প্রথম শেখ কামাল গোল্ডকাপে চট্টগ্রাম আবাহনীর চ্যাম্পিয়ন হওয়ার দৃশ্য। এলিটার জোড়া গোলেই ইস্টবেঙ্গলকে ৩-১ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল আবাহনী। মাঠে এলিটার গোল করার ক্ষমতা সবার জানা। কিন্তু এই নাইজেরিয়ানের সবচেয়ে বড় গুণ, অন্যান্য আফ্রিকান ফুটবলারের মতো তাঁর নামে কোনো অভিযোগ নেই। ক্লাব কর্মকর্তা থেকে দর্শক—সবাই এলিটাকে ভদ্র ফুটবলার হিসেবেই সম্মান করেন।

বাংলাদেশে পা রাখেন ২০১১ সালে। আরামবাগ, মুক্তিযোদ্ধা ও বিজেএমসি ক্লাবের হয়ে মেঘে মেঘে বেলা গড়িয়ে প্রায় সাত বছর হলো। ইতিমধ্যে পুরোপুরি বাংলাদেশি হয়ে ওঠার জন্য গত বছর নাগরিকত্ব চেয়ে আবেদন করেছেন। এখন তাঁর একটাই স্বপ্ন, মেয়ে সামিরা বলবে তার বাবা বাংলাদেশ জাতীয় দলের ফুটবলার, ‘অনেক বছর হলো বাংলাদেশে আছি। এখানেই সংসার পেতেছি। এখন আমি নিজেই বাংলাদেশের হতে চাই। লাল-সবুজ জার্সি গায়ে খেলতে চাই। এ জন্যই বাংলাদেশের নাগরিকত্ব চেয়ে আবেদন করেছি। মেয়ের মুখ থেকে শুনতে চাই, তার বাবা বাংলাদেশ জাতীয় দলের ফুটবলার।’ কথাটি শেষ করার আগেই চার বছরের সামিরা ‘লাভ ইউ বাবা’ বলে চুমু দিলেন এলিটার গালে।

বৃহস্পতিবার এলিটা-লিজা দম্পতির সামনে বসে একটি সুখের সংসারের ছবি দেখে নেওয়া গেল। পরের দিনই সামিরা তার দাদাবাড়ি নাইজেরিয়ার উদ্দেশে রওনা হয়েছে। এই নিয়ে ছোট মেয়েটার মধ্যে কী উচ্ছ্বাস। লিজাও প্রথমবারের মতো শ্বশুরবাড়ি যাচ্ছেন। শাশুড়ির পছন্দ-অপছন্দ নিয়ে তাঁর চিন্তা। সবকিছুর মধ্যেই একটা সুখের ঘ্রাণ।
দুঃখও আছে। ঝগড়া হলে লিজা বা এলিটা কেউই নাকি মন খুলে ঝগড়া করতে পারেন না। লিজা যেমন খুব ভালো ইংরেজি বলতে পারেন না, তেমনি এলিটাও পারেন না খুব ভালো বাংলা বলতে। ফলে ঝগড়া হয় একপেশে। একপেশে ঝগড়ার আর মজা আছে নাকি। আফ্রিকা-বাংলাদেশের সন্ধিতে এই একটাই আফসোস!

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 manabsamaj
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazarmanabsom23